এভাবে মনকে রাখুন তরতাজা

কোভিড-১৯ শরীরের পক্ষে কতটা ক্ষতিকারক, তা এত দিনে সবাই জেনে গিয়েছেন। তাই লকডাউনে থাকা ছাড়া উপায় নেই। কিন্তু গৃহবন্দি থাকতে থাকতে অনেকেরই ক্লস্ট্রোফোবিক (claustrophobic) লক্ষণ দেখা দেয়। চার দেওয়ালের বাইরে যাওয়ার জন্য মন উতলা হয়ে ওঠে, দম আটকে আসে, শারীরিক অসুস্থতা দেখা দেয়। তাই এই সময়টাতে মন তরতাজা রাখা জরুরি।

লকডাউনে থাকতে থাকতে বদমেজাজ, খিটখিটে স্বভাব, অল্পেই রেগে যাওয়া ইত্যাদি ঘটতে থাকে। অল্পবয়সীদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা আরও বেশি। গৃহবন্দী থাকতে থাকতে কারও কারও মানসিক চাপ অসম্ভব বেড়ে যায়। এই সমস্যাগুলোর দিকে দৃষ্টি রেখে মন ভালো রাখবেন যেভাবে তা এবার জেনে নিন…

• বাড়িতে খোলা জানালা বা বারান্দার পাশে যতক্ষণ থাকা যায় থাকুন। আকাশ দেখুন। সামান্য শরীরচর্চা করুন ছাদে বা বারান্দায়।

• বাড়িতে থাকা প্রতিটি সদস্যের কমফর্ট জোন বোঝার চেষ্টা করুন। যে আত্মমগ্ন, তাকে অকারণ হইচইয়ের মধ্যে ফেলবেন না। যে বাইরে যেতে না পেরে মুষড়ে পড়ছে, তার সঙ্গে সময় কাটান। বাড়ির কমবয়সিটি ফোনে বা ভিডিও কলে বন্ধুর সঙ্গে কথা বলছে দেখলে বকাবকি করবেন না। এটা এখন তার প্রয়োজন, বিলাসিতা নয়। প্রয়োজনে বাড়ির সবাই বসে স্থির করে নিন, কে কী ভাবে সময় কাটাতে চায়। কথা বলুন নিজের অসুবিধা নিয়ে।

• যে মানুষটিকে বাড়িতে বসে অফিসের কাজ করতে হচ্ছে, তার ঘরের কাজের ভার নিন। তাকে একটা শান্ত, নির্ঝঞ্ঝাট পরিবেশ দিন। যে কাজ আপনি বা অন্য কেউ করতে পারে, তার জন্য তাকে বার বার ডাকবেন না। এমন একটা ঘর বা ডেস্ক তাকে দিন যেখানে বাকিদের যাওয়া বারণ করে দেওয়া হবে। ঘুম থেকে উঠে তাকে প্রস্তুত হওয়ার সময় দিন। অফিসের কাজের পর কিছুটা বিশ্রাম নিতে দিন। চা বানানো, রান্না, বাসন মাজা, ঘর সাফ, এগুলো ভাগ করে নিন। মনে রাখবেন, সে পরিশ্রম করছে যাতে বাকিরা ভাল থাকে। তার দক্ষতার প্রশংসা করুন। তার সমস্যা হলে গুরুত্ব দিয়ে সমাধান করুন।

• যদি বাড়িতে অপ্রীতিকর পরিবেশ থাকে, সচেতন ভাবে নিজেকে ব্যস্ত রাখুন। কোনও কথা কাটাকাটি, তর্ক, ঝগড়ায় জড়াবেন না। অপছন্দের মানুষটির মুখোমুখি কম হওয়াই ভাল। নিজেকে কাজের মধ্যে রাখুন। সময়গুলো খুশিমনে কাটানোর চেষ্টা করুন।

• অনেক সময় যেহেতু পাচ্ছেন, তাই কোরআন পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন। তাতে অনেককিছু জানাও হবে, আবার মনও ভাল থাকবে। এছাড়ার আপনার পছন্দের যে কোন বই পড়তে পারেন।

• ফোনের মাধ্যমে আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবদের খবর নিতে পারেন। এছাড়া ছেলেমেয়েদের পড়াশোনায় সময় দিতে পারেন। তাতে আপনার সময় কেটে যাবে আর মনও ভাল থাকবে।

• বাড়ির সব সদস্যকে নিয়ে যে কোন খেলার আয়োজন করতে পারেন। তাতে সবাই মজা পাবে, মনও তরতাজা থাকবে।

• অনেক অনেক কথা বলুন। পরিবারের সঙ্গে, সহকর্মীর সঙ্গে, ছাত্রছাত্রীর সঙ্গে। নিজেকে মানসিক ভাবে অন্তত বিচ্ছিন্ন ভাববেন না। গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতি নিয়ে বাড়ির সবার সঙ্গে আলোচনা বা বিতর্কের আয়োজন করুন। যত বেশি কথা বলবেন, তত আপনার মন ভালো থাকবে।