কেন হাসে মানুষ?

মানুষ তো হেসেই থাকে। সে নানা কারণেই হাসতে পারে। হাসার জন্য সেরকম কারণ না থাকলেও এখনকার মানুষ একটু তেই হেসে থাকে। তবে আমরা সবাই জানি স্বাস্থ্যের জন্য হাসা ভালো। তবে সবার জানা আছে, হাসি একে অপরের মধ্যে সম্পর্ক আরও ভালো করে। হাসি সুখ, আনন্দ ও সুস্থতার প্রতীক।
কেন হাসে মানুষ?
গবেষকেরা জানিয়েছেন, ‘আমরা যদি হাসির রহস্য উদঘাটন করতে যাই, সে ক্ষেত্রে আমাদের আরও গভীরভাবে চিন্তা করতে হবে। আর দেখতে হবে হাস্যরসিক ব্যক্তিটির মস্তিষ্কে কী ঘটছে। মস্তিষ্কের যে অংশ থেকে হাসি নিয়ন্ত্রিত হয়, তার নাম সাবকর্টেক্স। এই অঞ্চলটি থাকে মস্তিষ্কের গভীরে। মস্তিষ্কের বিবর্তনের দিক থেকে এ অঞ্চলটি হচ্ছে সবচেয়ে আদিমতম অঞ্চল, যা শ্বাস নেওয়া বা প্রত্যুত্পন্নমতির মতো আদিম আচরণকে নিয়ন্ত্রণ করে। যার অর্থ হচ্ছে, হাসি নিয়ন্ত্রণের অঞ্চলটি মস্তিষ্কের স্মৃতি নিয়ন্ত্রণ অঞ্চল থেকেও অনেক গভীরে অবস্থান করে।’

হাসির কিছু না হলেও মস্তিষ্কে হাসির খোরাক জন্ম নিতে পারে। ফলে অনেক সময় হো হো করে অট্টহাসিতে ফেটে পড়ে মানুষ। কোনোমতেই হাসি আটকে রাখতে পারে না। আবার অনেক সময় উল্টোটাও ঘটতে পারে। প্রয়োজনের সময় হাসির উদ্রেক নাও হতে পারে। মস্তিষ্কপ্রসূত হাসির বাইরে যে হাসি মানুষ হাসে, সে হাসি মেকি বা নকল হাসি।