শরীরের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে কলমি শাক! জেনেনিন

কলমি শাকের দাম কম। কিন্তু এর নানা উপকারিতা রয়েছে। এই শাকটি জলে জন্মায়। আবার জলেই বড়ো হয়ে ওঠে। অনেকেই এই শাকটি খুবই কম খান। তবে এর গুনাগুনগুলি জানলে এই শাক খাওয়া ধরবেন–

১) শারীরিক দুর্বলতা কমায়: শরীর দুর্বল হলে এই শাক খাওয়া উচিত। রোগীদেরকে দ্রুত ঠিক করার জন্য এই শাক খাওয়ানো হয়।

২) হাড় শক্ত করে: কলমি শাকে ক্যালসিয়াম রয়েছে যা হাড়কে মজবুত করে।

৩) বসন্ত রোগে: বসন্ত রোগের প্রতিষেধক হিসাবে পরিচিত কলমি শাক।

৪) মহিলাদের শারীরিক সমস্যায়: মহিলাদের বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দূর করে।

৫) হজমে সহায়ক:
কলমি শাক আঁশ জাতীয় খাবার হওয়ায় তা হজমে সাহায্য করে।

৬) চোখ ভালো রাখে: কলমি শাক দৃষ্টিশক্তি প্রখর করতে সাহায্য করে।

৭) রক্তশূন্যতায়: কলমি শাকে লৌহ থাকায় তা রক্তশূন্যতার রোগীদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৮) রোগ প্রতিরোধক: কলমি শাকে থাকা ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

আসুন জেনে নেই ১০০ গ্রাম কলমি শাকে কি কি থাকে–

১) সোডিয়াম- ১১৩ মিলিগ্রাম।
২) পটাশিয়াম- ৩১২ মিলিগ্রাম।
৩) খাদ্যআঁশ- ২.১ গ্রাম।
৪) প্রোটিন- ৩ গ্রাম।
৫) কার্বোহাইড্রেট- ৫.৪ গ্রাম।
৬) ক্যালসিয়াম- ৭৩ মিলিগ্রাম।
৭) ফসফরাস- ৫০ মিলিগ্রাম।
৮) লৌহ- ২.৫ মিলিগ্রাম।
৯) জলীয় অংশ- ৮৯.৭ গ্রাম।