ঘরের যেসব সাধারণ কাজেই ব্যায়ামের উপকারিতা মিলবে সহজেই

করোনা পরিস্থিতির কারণে সবাই এখন ঘরবন্দি। এই ঘরবন্দি জীবনে সবকিছুই ওলটপালট হয়ে গেছে। খাওয়া, ঘুম, কাজ সবকিছু নিয়মের বাইরে হচ্ছে। এছাড়া সবেই শেষ হলো কোরবানির ঈদ। এমনিতেই প্রচুর খাওয়া হয়। যা সহজেই শরীরে মেদ বাড়িয়ে দেয়।
লকডাউনে জিম বন্ধ থাকার কারণে বাইরে গিয়ে জিম করা বা খোলা স্থানে হাঁটাহাঁটি করার সুযোগ থাকছে না। তাই শরীরের পরিচর্যাও করতে হচ্ছে ঘরে বসেই। আবার অনেক নারীরা ঘরের কাজেই এত পরিমাণ ব্যস্ত সময় কাটান যে, তার বাইরে শরীরচর্চা করার কোনো সুযোগ পান না।

তবে জেনে অবাক হবেন যে, ঘরের বিভিন্ন সাধারণ কাজ করেই সেরে ফেলতে পারবেন আপনার শরীরচর্চার ঘাটতি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সাধারণ ঘরের যেসব কাজ করেই মিলবে ব্যায়ামের উপকারিতা-

রান্না করা

সাধারণত নারীদের নিত্যদিনের কাজ হচ্ছে রান্না করা। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না যে, রান্না করার সময় আগুনের আঁচেও আপনার ক্যালোরি কমে অনেকটাই।

বাসন মাজা

ঘরের বিভিন্ন বাসন মেজেই সেরে ফেলতে পারেন আপনার হাত আর বাহুর ভালো ব্যায়াম। বাসন ঘষে ঘষে মেজে পরিষ্কার করলে সক্রিয় থাকে হাতের পেশি। আর এটি করলে ক্যালোরিও বার্ন হয় অনেকটাই।

বসে ঘর মোছা

বর্তমানে ঘর মোছার জন্য পাওয়া যায় নানা রকম সরঞ্জাম। তবে ঘরের যেসব কাজ করতে বেশি পরিমাণে কষ্ট করতে হয়, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বসে থেকে নিজ হাতে ঘর মোছা। আর এটিতেই মিলবে শারীরিক ব্যায়ামের মতো উপকার। কারণ বসে থেকে হাঁটু গেড়ে ঘর মোছার সময় পেটে ও কোমরে চাপ পড়ার পাশাপাশি পায়ের মাসলের ব্যায়াম হয়।

হাতে কাপড় কাচা

হাতে কাপড় কাচা হচ্ছে কষ্টকর কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম আরেকটি। তবে জেনে অবাক হবেন যে, এ কাজটি আপনার শরীরকে ফিট রাখতেও সহায়তা করে। এতে ব্যায়াম হয়ে যায় আপনার পুরো হাতেরই। আর ভারি কাপড় কাচার ফলে হাতের পাশাপাশি পায়ের পেশিগুলোও অনেক বেশি সক্রিয় থাকবে।

ঝুল পরিষ্কার করা

ঘরের অন্যান্য কাজের চেয়ে অপেক্ষাকৃত সহজ কাজ হচ্ছে ঘরের ঝুল পরিষ্কার করা। কিন্তু এ কাজটি করেও আপনি কমাতে পারেন আপনার ক্যালোরি। এটি করলে পিঠ আর ঘাড়ের দিকের মেদ কমে।

আলমারি বা সেলফ গোছানো

হাত উঁচু করে আলমারি বা সেলফ গোছালেও কমে শরীরের ক্যালোরি। হাত উঁচু করে এসব কাজ করলে পিঠের মেদ কমে। আর হাত নিচু করে বা বসে এ কাজগুলো করলে ব্যায়াম হয় পায়ের।