ওজন কম নবজাতকদের সুস্বাস্থ্যের জন্য জনপ্রিয় হচ্ছে এই বিশেষ কেয়ার

সন্তান লালন পালনে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে ক্যাঙ্গারু কেয়ারের টেকনিক। বিশেষত যে নবজাতকদের ওজন কম তাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য ক্যাঙ্গারু কেয়ারের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। ক্যাঙ্গারু কেয়ার মানে হচ্ছে বুকে জড়িয়ে রাখতে হয় সন্তানকে। সরাসরি উভয়ের ত্বকের সঙ্গে যাতে যোগাযোগ হয়, সে বিষয় লক্ষ্য রাখা উচিত। অর্থাৎ খালি গায়ে এই ক্যাঙ্গারু কেয়ার দেওয়া উচিত। তবে শুধু কম ওজনের নবজাতকই নয়, সকল নবজাতকের ক্ষেত্রে এমন করা যেতে পারে। এটি সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার ভালো ও সহজ উপায়।

কারা ক্যাঙ্গারু কেয়ার দিতে পারে:

মা-ই শিশুকে ক্যাঙ্গারু কেয়ার দেওয়ার সবচেয়ে উপযুক্ত ব্যক্তি। তবে মা ছাড়াও বাবা বা পরিবারের সদস্য (শিশুর দাদা-দিদি, ঠাকুরদা, ঠাকুরমা, কাকা, কাকিমা)-রা মায়ের পরিবর্তে নবজাতক সন্তানকে ক্যাঙ্গারু কেয়ার দিতে পারে। তবে যারা এই কেয়ার প্রদান করবে তাদের ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা (নিয়মিত স্নান করা, পরিষ্কার জামা-কাপড় পরা, হাত ধোয়া, নখ ছোট ছোট করে কেটে রাখা)-র বিষয়টি মেনে চলতে হবে।

কখন দেওয়া যেতে পারে:

জন্মের পর থেকে সম্পূর্ণ পোস্টপার্টাম সময়কাল পর্যন্ত ক্যাঙ্গারু কেয়ার দেওয়া যেতে পারে।

দিনে কতক্ষণ ক্যাঙ্গারু কেয়ার দেওয়া যায়:

প্রথম দিকে অল্প সময় (৩০ থেকে ৬০ মিনিট)-এর জন্য ক্যাঙ্গারু কেয়ার দিন। মায়েরা ধীরে ধীরে এতে স্বাচ্ছন্দবোধ করতে শুরু করলে দীর্ঘ সময় পর্যন্ত এটি দেওয়া যেতে পারে। বিশেষত কম ওজন সম্পন্ন বাচ্চাদের যত দীর্ঘ সময় সম্ভব ক্যাঙ্গারু কেয়ার দেওয়া যায়। এ সময় মায়েরা আধা বসা অবস্থায় ক্যাঙ্গারু কেয়ার প্রদান করার সময় বিশ্রামও করতে পারেন।

ক্যাঙ্গারু কেয়ারের পদ্ধতি:

মায়ের বুকে ওপরের দিকে, স্তনযুগলের মাঝখানের অংশে শিশুকে শুয়ে রাখা হয়। এক অংশে মাথা রাখুন, যাতে তাদের শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে কোনো অসুবিধা না হয়। আবার মায়ের সঙ্গে শিশুর চোখের যোগাযোগও থাকা উচিত। শিশুর পেট, মায়ের পেটের ওপরের অংশে রাখতে হবে। আবার শিশুর হাত ও পা মুড়ে রাখা উচিত। প্রয়োজনে শিশুকে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য ক্যাঙ্গারু ব্যাগ বা স্লিঙ্গের সাহায্যে নিতে পারেন।